সৌদির সালমানের উত্থান ও দেশে-বিদেশে গোপন মিশন

কয়েকশ কোটি ডলারের অর্থ কেলে’ঙ্কারিতে মালয়েশিয়ার সাবেক প্রধানমন্ত্রী নাজিব রাজাকের বারো বছরের কা’রাদণ্ড হয়েছে।মি. রাজাকের বি’রুদ্ধে এ পর্যন্ত আনা দুর্নীতির সাতটি অভিযোগেই তিনি দোষী প্রমাণিত হয়েছেন। এই দুর্নীতি বলা

হচ্ছে বিশ্বের সবচেয়ে বড় আর্থিক কেলে’ঙ্কারিগু’লোর অন্যতম, যার জাল জড়িয়ে পড়েছিল এশিয়া থেকে হলিউড পর্যন্ত ।

ওয়ান মালয়েশিয়ান ডেভেল’পমেন্ট বেরহাদ বা ওয়ানএমডিবি একটি রাষ্ট্রীয় তহবিল, যা গঠন করা হয় ২০০৯ সালে যখন নাজিব রাজাক

দেশটির প্রধানমন্ত্রী ছিলেন। মালয়েশিয়ার অর্থনৈতিক উন্নতির জন্য তহবিল সংগ্র’হের লক্ষ্যে এই প্রকল্প নেয়া হয়েছিল।মালয়েশিয়ার জনগণকে সাহায্য করার

জন্য গঠিত এই তহবিল থেকে ক’য়েকশ কোটি ডলার অর্থ হাওয়া হয়ে যায়, বিশ্ব অর্থ’নীতির কালো গহ্বরে কোথায় হারিয়ে যায় সেই বিপুল পরিমাণ অর্থ।

আমেরিকান এবং মালয়েশীয় কৌঁসু’লিরা বলেছেন, এই অর্থ কিছু ক্ষমতাশালী ব্যক্তির পকেটে গেছে।

এছাড়াও তা দিয়ে কেনা হয়েছে বিলাসবহুল ভবন, ব্যক্তিগত জেটবিমান, ভ্যান গগ এবং মনে-র মত বিখ্যাত চিত্র’শিল্পীদের চিত্রকর্ম এবং নির্মাণ করা হয়েছে হলিউডের ব্লক’বাস্টার হিট ছবি।

কৌঁসুলিরা জানিয়েছেন, তহবিল থেকে সরানো হয়েছে সাড়ে চারশো কোটি ডলার, যা গেছে বিভিন্ন ব্যক্তির পকেটে।

এই ওয়ানএমডিবি কেলে’ঙ্কা’রির সঙ্গে জড়িয়ে আছে অন্ত’ত ছয়টি দেশ। বিপুল পরিমাণ অর্থের লেনদেনের সন্ধা’নে তদন্ত চালানো

হয়েছে সুই’স ব্যাংক থেকে শুরু করে যেসব বিভিন্ন দ্বীপ রাষ্ট্র কর মও’কুফের স্বর্গরাজ্য সেসব দ্বী’পের ব্যাং’কগুলো’তে এবং দক্ষি’ণপূর্ব এশিয়ার মূল কেন্দ্রে।

এই কেলে’ঙ্কা’রিতে জ’ড়িয়ে থাকা চরিত্র এবং গল্পে’র প্লট ধারা’বাহিক রোম’হর্ষক কাহিনির মত মুখরো’চক।

আন্তর্জাতিক পরিসরে যেসব ক্ষ’মতা’শালী এই অর্থে লাভ’বান হয়েছেন বলে অভিযোগ, তাদের কাছে কীভাবে

এই অ’র্থ পৌঁছল তার ওপর ধৈ’র্য্য ধরে নজর রেখেছিলেন যেসব সাংবাদিক – তাদের রিপো’র্টে উঠে এসেছে এই রোমাঞ্চকর গল্প।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *